সোমবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২০, ০৩:১৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জ কৃষি ব্যাংকে ১০ টাকার কৃষি একাউন্ট খুলতে হচ্ছে ৫শ টাকায় বিলাস বহুল অফিসে বসেই চাকুরী প্রার্থীদের সাথে প্রতারণা করত ভূয়া এএসপি রাহুল জেরিন হত্যাকান্ডের সাথে যেই জড়িত তাকে আইনের আওতায় আনা হবে-এমপি আবু জাহির আগামীকাল থেকে অনির্দিষ্টকাল ধর্মঘট পালন করবে হবিগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন হবিগঞ্জ নাগরিক কমিটির উদ্যোগে বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ও ছানি অপারেশন ৮ দফা দাবীতে ১১-২০ গ্রেডের সরকারী কর্মচারীদের কার্যকরি কমিটির সভা অনুষ্টিত ইকরাম জগন্নাথ জিউর আখড়ার নয়া কমিটি গঠন ॥ গোপাল সভাপতি, মোহন সম্পাদক বিদ্যুৎ উদ্বোধনকালে এমপি আব্দুল মজিদ খান ॥ করচা গ্রামে বিদ্যুতায়ন জাতিরজনকের কন্যা শেখ হাসিনার অনন্য অবদান জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতদের স্বীকারোক্তি চাকরি হারানোর ক্ষোভে ট্রাক চালক ও তার বন্ধুকে মাধবপুরে হত্যা সুরমা চা-বাগানে গলায় দড়ি দিয়ে শ্রমিকের আত্মহত্যা
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ॥ শিক্ষকের বেতের আঘাতে ছাত্রীর চোখ অন্ধ ॥ সাময়িক বরখাস্ত ॥ বিভাগীয় মামলা

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ॥ শিক্ষকের বেতের আঘাতে ছাত্রীর চোখ অন্ধ ॥ সাময়িক বরখাস্ত ॥ বিভাগীয় মামলা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া ইউনিয়নের যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকের ছোড়া বেতের আঘাতে হাবিবা আক্তার (৮) নামে এক শিক্ষার্থীর চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। সে ওই বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। হাবিবা যাদবপুর গ্রামের প্রবাসী শাহিন মিয়ার মেয়ে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক নিরঞ্জন দাসের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া তাকে চাকুরী থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকাল বুধবার ১১ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রেজ্জাক বিভাগীয় মামলা রুজু করে প্রতিবেদন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহা-পরিচালকের নিকট প্রেরণ করেছেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রেজ্জাক বিভাগীয় মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আজ থেকেই অভিযুক্ত শিক্ষকের পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। শিগগিরই তাকে স্থায়ী বরখাস্তের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।
প্রসঙ্গত, গত রবিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ক্লাস চলাকালীন সহকারী শিক্ষক নিরঞ্জন দাশ তার হাতের একটি বেত ছুড়ে মারলে তা সরাসরি হাবিবার চোখে লাগে। সাথে সাথে তার চোখ থেকে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। পরে শিক্ষার্থীরা চিৎকার শুরু করলে স্থানীয় লোকজন হাবিবাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যান। সদর হাসপাতালে প্রাাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত তাকে ঢাকা জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়। গত সোমবার অপারেশনের পর চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হাবিবার চোখ নষ্ট হয়ে গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com