রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:১৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
নবীগঞ্জের সাংবাদিক জুনাইদ হত্যা ॥ মামলার রায় ২৩ সেপ্টেম্বর

নবীগঞ্জের সাংবাদিক জুনাইদ হত্যা ॥ মামলার রায় ২৩ সেপ্টেম্বর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জের বহুল আলোচিত সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ হত্যা মামলার যুক্তিতর্ক শেষ হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ নাছিম রেজার আদালতে দীর্ঘ যুক্তিতর্ক শেষে রায়ের জন্য ২৩ সেপ্টেম্বর তারিখ ধার্য্য করা হয়। গতকাল বুধবার দীর্ঘ যুক্তিতর্ককালে জুনাইদ আহমদ এর পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন অতিরিক্ত পিপি এডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক, এডভোকেট আকবর হোসেন জিতু, এডভোকেট আজিজুর রহমানও এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান।
আসামী পক্ষে যুক্তিতর্কে অংশ নেন এডভোকেট হাবিবুর রহমান, এডভোকেট আবুল ফজল ও এডভোকেট মোফাজ্জল হোসেন। পলাতক হয়ে বিদেশে চলে যাওয়া প্রধান আসামী ফরিদ মিয়ার পক্ষে স্টেইট ডিফেন্স হিসাবে যুক্তিতর্ক করেন এডভোকেট জাকারিয়া। এর আগে ২০ আগস্ট যুক্তিতর্ক শুরু হয় আলোচিত এই মামলার।
প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১০ জুলাই সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ বাড়ি থেকে বের হয়ে জেলা সদর হবিগঞ্জে যান। ওই রাতেই দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে লাশের আলামত নষ্ট করার জন্য শায়েস্তাগঞ্জ রেল লাইনে ফেলে রাখে। পরদিন ১১ জুলাই সকালে সাংবাদিক জুনাইদ আহমদের মৃতদেহ প্রায় ২০ টুকরা অবস্থায় রেলওয়ে পুলিশ উদ্ধার করে। ঘটনার শুরুতেই জুনাইদ আহমেদের পরিবার এটাকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করে আসছিল।
এক পর্যায়ে মোবাইল ফোনের কল লিস্টের সূত্র ধরে জুনাইদের ভাই মোজাহিদ আহমদ বাদী হয়ে হবিগঞ্জের বিজ্ঞ আদালতে একই গ্রামের ফরিদ উদ্দিনকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে আদালত মামলাটি এফআইআর গণ্যে রুজু করার জন্য জিআরপি থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন।
মামলার খবর পেয়েই প্রধান আসামী ফরিদ লন্ডনে পালিয়ে যায়। অপর আসামীরাও আত্মগোপন করে। এদিকে পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকায় জুনাইদের পরিবার তৎকালিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীরের কাছে উক্ত হত্যাকাণ্ডের বিচার ও আসামীদের গ্রেফতারের আবেদন করেন। মন্ত্রী এক মাসের মধ্যে আসামীদের গ্রেফতারে সংশ্লিষ্ট পুলিশকে নির্দেশ দিলেও কোন ফল হয়নি।
এক পর্যায়ে নিহত জুনাইদের পরিবারের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাহুবল থেকে পুলিশ মামলার ২নং পলাতক আসামী আব্দুল হামিদকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। পরে রেলওয়ে পুলিশ শ্রীমঙ্গল জোনের তদন্ত কর্মকর্তা রিমান্ডের আবেদন করে তাকে ৩ দিনের রিমান্ডে নেন। রিমান্ডে নিয়ে ওই কর্মকর্তা হত্যাকাণ্ডের কোন ক্লু উদঘাটন না করে আসামীদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলেন বলে অভিযোগ উঠে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে জুনাইদের পরিবার বাংলাদেশ রেলওয়ে পুলিশের ডিআইজি সোহরাব হোসেন এর নিকট অভিযোগ দিলে তিনি নিহত সাংবাদিকের পরিবারকে শাস্তনা দিয়ে এই হত্যাকাণ্ডের বিচারের আশ্বাস দেন। পরবর্তীতে ডিআইজি সোহরাব হোসেন শায়েস্তাগঞ্জে আসেন। তিনি এ সময় বলেন-সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে কারো সাথে আপোষ হবে না। প্রয়োজনে সংঘবদ্ধভাবে পলাতক আসামীকে আটক করে পুলিশকে জানানোর জন্য সাংবাদিকসহ সুশীল সমাজের প্রতি আহ্বান জানান।
এ মামলার প্রধান আসামী ফরিদ লন্ডনে পলাতক, অপর আসামী বাহুবলের মাদক স¤্রাট আব্দুল হামিদকে স্থানীয় জনতা আটক করে উত্তম মধ্যম দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। প্রায় বছর খানেক জেল খেটে বের হলে স্থানীয় লোকজন তার অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে গণপিটুনি দিয়ে মেরে পেলেন। ৩য় আসামী বাদশা ৬ মাস জেল কাটার পর জামিনে মুক্তি পায়। ৪র্থ আসামী রাহুলও ৬ মাস জেল কাটার পর জামিনে মুক্ত রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com