রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:২৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
মাধবপুর মহাসড়কে এএসপি’র গাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতি ॥ সন্দেহভাজন ৪ জন আটক

মাধবপুর মহাসড়কে এএসপি’র গাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতি ॥ সন্দেহভাজন ৪ জন আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) পারভেজ আলম চৌধুরীর গাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। মালামাল লুট। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জড়িত থাকার সন্দেহে বিভিন্ন স্থান থেকে ৬ জনকে আটক করে। গত রাতে মাধবপুর থানায় একটি ডাকাতি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জানা যায়, গতকাল রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) দিবাগত ভোর রাতে মাধবপুর উপজেলায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে বেঙ্গাডোবা নামক স্থানে ডাকাতের কবলে পড়েন নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী। এ সময় ডাকাতরা ওই পুলিশ কর্মকর্তাসহ তাঁর পরিাবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে রেখে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান জিনিস পত্র ছিনিয়ে নেয়। একই সাথে তাদের মারধোর করে আহত করে।
পুলিশ জানিয়েছে, ঢাকার পুলিশ হেড কোয়ার্টারে সার্কেল এএসপিদের একটি মিটিং শেষ করে কর্মস্থল বাহুবলে স্বপরিবারে ফিরছিলেন এএসপি পারভেজ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়িচালক। রোববার দিবাগত রাত আনুমানিক তিনটার দিকে তার পরিবারকে বহনকারী মাইক্রোবাসটি বেঙ্গাডোবা নামক স্থানে পৌঁছালে একদল ডাকাত রাস্তার দু’পাশে শিকল টেনে গাড়ির গতিরোধ করে। এরপর অস্ত্রের মুখে এএসপির স্ত্রীর সোনার চেন, আংটি, নগদ টাকা ও লাগেজ নিয়ে যায়।
সুত্র আরও জানায়, ডাকাতরা এএসপি পারভেজ, তাঁর স্ত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়িচালক হাসানকে মারধর করে। খবর পেয়ে মাধবপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামালের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে খালি একটি লাগেজ উদ্ধার করে। ওই লাগেজে এএসপির পুলিশের পোশাকসহ বিভিন্ন মালামাল ছিল বলে জানা গেছে।
মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কেএম আজমিরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় সন্দেহভাজন ৬ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মাধবপুর থানায় একটি ডাকাতির মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা (বিপিএম-পিপিএম) বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সন্দেহভাজন কয়েক জনকে আটক করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com