বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:৪২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে দু’মাদক ব্যবসায়ীর কারাদন্ড হবিগঞ্জে শাজাহান খানের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্টিত নবীগঞ্জ-আউশকান্দি সড়কে ট্রাক-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল বৃদ্ধার! “নবীগঞ্জ ইউকে আইসিটি ইন্সটিটিউট” শিক্ষার্থীদের মধ্যে সনদ পত্র বিতরণ নবীগঞ্জের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাবু মানিক লাল রায়ের ছোট ছেলের বিয়ে সম্পন্ন লন্ডন প্রবাসী মুফতি মিয়া কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির সদস্য নির্বাচিত তাঁতীদল এর ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে হবিগঞ্জ শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ সুরঞ্জিত দাসের বিবাহ সম্পন্ন আন্তর্জাতিক এডভেঞ্চার স্কাউট ক্যাম্পে জেলা যুবলীগ সভাপতির পুত্র সামি’র অংশ গ্রহন অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকার অভিযোগে শায়েস্তাগঞ্জ রেলব্রীজ এলাকা থেকে যুবক আটক
সৌদিতে নির্মম নির্যাতনের শিকার হবিগঞ্জের ৯ নারী দেশে ফিরেছেন

সৌদিতে নির্মম নির্যাতনের শিকার হবিগঞ্জের ৯ নারী দেশে ফিরেছেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কাজ করতে একটু দেরি হইলেই অনেক মারে। আমি দেয়াল মুছতে একটু দেরি করায় তিন দিন আমারে মারছে। এক সপ্তাহ কোনো খাওন (খাবার) না দিয়া একটা রুমে বন্দি কইরা রাখছে। তাদের নির্যাতন সহ্য করতে না পাইরা পালাইয়া আইছি। আর কয়েক দিন ওই কপিলের বাসায় থাকলে আমি মারা যাইতাম। ভাল কইরা বাঁচতে সৌদি গেছলাম, এখন কোনো রকম জীবন বাঁচাইয়া ফিরা আইছি। কথাগুলো বলছিলেন সৌদি আরবে নিয়োগ কর্তা কর্তৃক নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে আসা হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার রুহেনা বেগম (২৫) (ছদ্মনাম)। সোমবারে হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ওই ২২ নারী নিজ নিজ বাড়িতে ফিরেছেন বলে জানান ব্র্যাকের তথ্য কর্মকর্তা আল আমিন নয়ন। সোমবার (২৬ আগস্ট) আমিরাত এয়ারওয়েজের দু’টি বিমান যোগে দুই দফায় ১২ ঘণ্টায় দেশে ফিরেন ১১০ নারী গৃহকর্মী। বিকেল ৫.২৫ মিনিটে ৪৫ জন ও রাত ১১.২০ মিনিটে ৬৫ জন নারী গৃহকর্মী দেশে ফিরেছেন। এই ১১০ জনের মধ্যে ২২ জন ছিলেন সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলার বাসিন্দা। দেশে ফেরত আসা ২২ জনের মধ্যে হবিগঞ্জ জেলারই ৯ জন নারী। নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরে রুহেনা বলেন, অনেক কষ্ট করে কাজ করেছি ৭ মাস। কাজ করতে সামান্য দেরি হলেই অনেক নির্যাতন করতো। আমার ৫ মাসের বেতনও পাওনা আছে। কিন্তু নিজের জীবন বাঁচাতে পালিয়ে আসি আমি।
এম্বাসিতে আমার মত আরো ১৫০ নারী পেয়েছি আমি। সবাই কপিলের নির্যাতনের শিকার। কারো হাত ভাঙা আরো পা ভাঙা। প্রতিদিনই ১০ থেকে ১২ জন নারী নির্যাতনের শিকার হয়ে এম্বাসিতে আসে। ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ১২ ঘণ্টায় দেশে ফেরা ১১০ নারী গৃহকর্মীর মধ্যে ২২ জন সিলেট বিভাগের। ওই ২২ জনের মধ্যে হবিগঞ্জ জেলার ৯ জন, সুনামগঞ্জ জেলার ৭ জন, সিলেট জেলার ৫ জন ও মৌলভীবাজার জেলার ছিলেন ১ জন ছিলেন। ব্র্যাকের তথ্য কর্মকর্তা আল আমিন নয়ন বলেন, নির্যাতনের শিকার হয়ে ফিরে আসা নারীদের আমরা আমাদের সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করার চেষ্টা করি। বিমানবন্দরে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম থেকে সকলকে জরুরি সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com