রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল থেকে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে ৪ দিনের এক নবজাতককে চুরি করে নিয়ে গেছে এক মহিলা। ঘটনাটি নিয়ে সারা শহরে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকার সাড়ে ৫ টার দিকে হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে। তবে চুরির ১ ঘন্টার ভিতরে নবজাতকের স্বজনদের সহযোগিতায় সদর থানার এসআই অমিতাভ শহরের পুরাণ মুন্সেফী এলাকায় রিপন আহমেদের বাসায় অভিযান চালিয়ে তার স্ত্রী ইসরাত আরা লোপা আক্তারের কাছ থেকে নবজাতককে উদ্ধার করে তার মা’র জিন্মায় দেন। এবং অভিযুক্ত মহিলা অন্তঃসত্তা হওয়ায় তার স্বামীর বাসায় নজরবন্দী রাখা হয়েছে।
এদিকে, নবজাতক চুরির খবর চাওর হলে আতঙ্কে হাসপাতাল থেকে অনেকইে নবজাতক নিয়ে বাহিরে চলে যান। তাছাড়া হাসপাতালের নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। চুনারুঘাট উপজেলার জোয়ার লালচান্দ চা বাগানের মোর্শেদ কামালের স্ত্রী নবজাতকের মা ফাতেমা বেগম এ প্রতিনিধিকে জানান, ১৮ আগস্ট সকালে প্রসুতি ব্যাথা নিয়ে গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি হন।
এ সময় জনৈক নার্সে বলে ‘স্বাভাবিক ডেলিভারীতে ঝুকি আছে। কিছু টাকা খরচ করতে পারলে তোমাকে সিজার করব’ তার কথামত ওই নার্সকে ৩ হাজার দিলে ওই দিন দুপুরে তাকে হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে তার একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। এর পর থেকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। গতকাল ওই সময়ে লোপা আক্তার ফাতেমার আত্মীয় পরিচয়ে নবজাতকে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে তাকে নিয়ে সটকে পড়ে। পরে অনেকক্ষণ পার হয়ে যাওয়ার পর বাচ্চা নিয়ে না আসায় বিভিন্ন স্থানে খোজা-খুজি শুরু করে ফাতেমা। না পেয়ে বুঝতে পারে তার বাচ্চাকে চুরি করা হয়েছে। তারপর হাসপাতালে শুরু হয় হট্টগোল শত-শত মানুষ হাসপাতালে ছুটে আসে। এবং বিভিন্ন স্থানে খোজাঁ-খুজি শুরু করে। অবস্থা বেগতিক দেখে ওসি (তদন্ত) জিয়াউর রহমান, এসআই অমিতাভ তালুকদার ও আবু নাঈমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ হাসপাতালে ছুটে যান। হাসপাতালের সামনে থাকা টমটম চালকের সহায়তায় নবতজককে উদ্ধার করা হয়। প্রতিবেশীরা জানান, অভিযুক্ত লোপা আক্তারের দীর্ঘদিন আগে রিপনের সাথে বিয়ে হলেও একাদিকবার তার গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়। বর্তমানেও সে ৭ মাসের অন্তঃসত্তা ডাক্তারী পরীক্ষায় সে জানতে পারে বাচ্চার অবস্থা ভাল না। এতে ওই মহিলার স্বামী মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে। এ কারনে বাচ্চাকে চুরি করে বাসায় প্রচার করে তার বাচ্চা হয়েছে। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি মোঃ মাসুক আলী জানান, নবজাতককে উদ্ধার করে তার মা’র জিন্মায় দেয়া হয়েছে। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com