বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
২০ হাজার মানুষের গ্রামে একটি রাস্তাও পাকা নেই ॥ চরম দুর্ভোগ সাবেক মেয়র জিকে গউছের নামে ভূয়া ইউটিউব চ্যানেল ॥ থানায় জিডি নবীগঞ্জে সাংবাদিক আজাদের মায়ের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক নবীগঞ্জে বিদ্যুতপৃষ্টে বৃদ্ধের করুন মৃত্যু ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে নবীগঞ্জে আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময় কারিতাস সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালন শায়েস্তাগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত কুদরত নিহত ॥ ৬ পুলিশ আহত বাহুবলের সাবেক চেয়ারম্যান মুদ্দত আলীর বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কাগজ দিয়ে মাটি, বালু উত্তোলনের অভিযোগ আজমিরীগঞ্জে ইমামের পিছনে বসা নিয়ে সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ১০
বানিয়াচংয়ে শিলাবৃষ্টিতে ফসল হারিয়ে কৃষকদের মাথায় হাত ॥ সরকারী হিসেবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সাড়ে ৮ কোটি টাকা

বানিয়াচংয়ে শিলাবৃষ্টিতে ফসল হারিয়ে কৃষকদের মাথায় হাত ॥ সরকারী হিসেবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সাড়ে ৮ কোটি টাকা

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচংয়ের হাড়ভাঙ্গা খাটুনীর ফসল হারিয়ে চোখে সর্ষে ফুল দেখছে কৃষকরা। মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ এনে অনেক কৃষকই চাষাবাদ করেছেন তাদের জমি। ফসল হারানোর ফলে কিভাবে ঋণ পরিশোধ করবে এবং খোরাকীই-বা কিভাবে চলবে এমন দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকরা।
এদিকে হাওরের শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর হবিগঞ্জ এর উপ-পরিচালক গোপাল চন্দ দাশ। এ সময় জেলা প্রশিক্ষক কর্মকর্তা কৃষ্ণ চন্দ খুর, বানিয়াচং উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল আলীম, মহিবুর রহমান, আবু হাসেম রাফে, প্রবীর চন্দ দাশ, মুখলিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। মাঠ পর্যায়ে পরিদর্শন শেষে বানিয়াচং সদরের ১ নং উত্তর পূর্ব ইউনিয়ন, ২ নং উত্তর পশ্চিম ইউনিয়ন ও কাগাপাশা ইউনিয়নের শিলা ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত জমি ও কৃষকের প্রাথমিক একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ৩ ইউনিয়নে বোরো ফসলের লক্ষমাত্রা ছিল ৭ হাজার ২শ ১৭ হেক্টর। তন্মধ্যে শিলা ঝড়ে ক্ষতি হয়েছে ১ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমি। এই ৩ ইউনিয়নে প্রাথমিক হিসেবে প্রান্তিক, ক্ষুদ্র, মাঝারী ও বড়সহ তিন শ্রেণীর কৃষকের মধ্যে ১ হাজার ২শ জন কৃষকের ধানি জমি শিলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে তালিকা করা হয়েছে। ১ হাজার ৩শ ৫০ হেক্টর জমির চাল এর হিসাব নির্ধারণ করা হয়েছে ২ হাজার ৩শ ৩২.৭৫ মেট্রিকটন। যা বর্তমান বাজার মূল্য ক্ষতির পরিমান দাঁড়ায় ৮ কোটি ৩৯ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। তবে বাস্তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরো বেশী হবে বলে কৃষকরা জানান। এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর হবিগঞ্জ এর উপ-পরিচালক গোপাল চন্দ দাশ জানান- আমরা শুধুমাত্র সদরের ৩টি ইউনিয়নের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রাথমিকভাবে নির্ধারন করেছি। কাল (আজ রবিবার) ক্ষতিগ্রস্থ অন্যান্য ইউনিয়নের ক্ষয়ক্ষতি জমির পরিমান নিরূপন করা হবে। তিনি আরো জানান, প্রাথমিকভাবে আমাদের তৈরী করা তালিকার বাইরেও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক থাকতে পারে। এক্ষেত্রে চূড়ান্ত তালিকা না হওয়া পর্যন্ত কৃষি কর্মকর্তাগণ সরেজমিন মাঠে গিয়ে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জমির পরিমান নির্ধারণ করবেন বলেও তিনি জানান। উল্লেখ্য, ২৫ এপ্রিল বিকালে হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের উত্তর ও দক্ষিন হাওরে ১৫ মিনিটের শিলা ঝড়ে ১০ সহস্রাধিক একর জমির ধান ঝড়ে মাটিতে মিশে গেছে। ঝড়ে বানিয়াচং হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো হলো হার্নি পুরাতনবন, হার্নি নতুনবন, চিতা হলদী, বুড়ারবন, ভাড়েরা, পুরানবন, বড়গুলিয়া, হরমানিয়া হাওর, চানকোনা, সীমের আইল, বল্লী, নছিবপুর, ফিজরাবাদ, পুকুড়পাড়, কদমতলা, মক্রমপুরের হাওর, বিথঙ্গল, চাতলবন, নলাইরবন, বগীরবন, চমকপুর, বাতাকান্দি, আজমিরীগঞ্জ, কাহাইলছেও হাওর।
এছাড়া আজমিরীগঞ্জে ১২০ হেক্টর ও নবীগঞ্জে ১৫০ হেক্টর জমির ফসল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com