রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
যুক্তরাজ্যে হবিগঞ্জবাসীর উদ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী “আনন্দ সন্ধ্যা”

যুক্তরাজ্যে হবিগঞ্জবাসীর উদ্যোগে ঈদ পূনর্মিলনী “আনন্দ সন্ধ্যা”

মারুফ চৌধুরী, লন্ডন থেকে
“আপন শক্তিতে, দূর্বার গতিতে”এই শ্লোগানকে সামনে রেখে গত ১৩ আগষ্ট মঙ্গলবার পুর্বলন্ডনের মাইক্রো বিজনেস সেন্টারের কমিউনিটি হলে আয়োজন করা হয় যুক্তরাজ্যে হবিগঞ্জবাসীর উদ্যোগে ঈদপূনর্মিলনী “আনন্দ সন্ধা” !
পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ কাটাতে সবারইতো ভালো লাগে! কিন্তু সবসময় কি বন্ধু বান্ধবদের পাওয়া যায় ? নাকি কেউ কারো জন্য সময় বের করতে পারে ? প্রবাস জীবনের এটাইতো সমস্যা ! ইচ্ছা করলেই দেখা করা যায় না। পারিবারিক দায়িত্ব, নিজের কাজ ইত্যাদি সামাল দিয়ে তবেইনা অন্য কিছু! সেই চিন্তাভাবনাটা মাথায় রেখেই ঈদের আগেই ঈদ পুনর্মিলনীর চিন্তাটা শুরু করে ফেলি! কম বেশী সকলের সাথে যোগাযোগ করে দিন তারিখও নির্ধারণ করি। অবশেষে আসে সেই মুহুর্ত যার অপেক্ষায় ছিলাম সকলেই! একেবারে ঈদের তৃতীয় দিন! দেখা হয়ে গেলো শতাধিক বন্ধু, বান্ধব, শুভানুধ্যায়ী, বড় ভাই, ছোট ভাইদের সাথে। কোলাকোলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ে সকলেই বেশ আবেগাপ্লুত হয়ে যান। অলিউর রহমান অলির অনবদ্য উপস্থাপনায় মহুর্থেই “মাইক্রো বিজনেস সেন্টারের” কমিউনিটি হল রুমটি কানায় কানায় ভরে উঠে।
বিশেষ ধন্যবাদ দিতে চাই তাদের, যারা খুব বেশী কষ্ট করে আমাদের অনুষ্টান সফল করতে সহায়তা করেছেন এবং নিজেদের বাসা থেকে হাতে তৈরী খাবার নিয়ে এসেছেন, যাতে ঘরোয়া পরিবেশ এবং ঈদের আমেজটা বজায় থাকে! আমাদের শহীদুল আলম বাচ্চু ভাই, তাহির আলী ভাই, জালাল উদ্দিন ভাই, শাহ শহীদ আলী, জালাল আহমেদ, অলি, কামাল চৌধুরী, সাদী, বাবর সহ আরো অনেকে।
অনুষ্ঠানটি প্রানবন্ত হয়ে উঠে আমাদের হবিগঞ্জের অতিপরিচিত, স্বনামধন্য প্রিয় কয়েকজন বড়/ছোট ভাইয়ের উপস্থিতিতে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য সবার প্রিয় মাসুদ রানা ভাই, জোবায়ের আহমেদ ভাই, আবু ইউসুফ ভাই, ফজিলত খান মামা, মীর গোলাম মোস্তফা ভাই, গাজী ভাই, দেওয়ার মোকাদ্দিম চৌধুরী নিয়াজ ভাই, জাকারিয়া ভাই, মন্জু ভাই, চৌধুরী মোস্তাক ভাই, বুলবুল চৌধুরী ভাই, জালাল উদ্দিন ভাই, সৈয়দ মোস্তাক ভাই, বাচ্চু ভাই, আশফাক ভাই, ব্যারিষ্টার তারেক ভাই, নিয়াজ লিংকন ভাই, দেলোয়ার হুসেন চৌধুরী (হিরু), জাহাঙ্গীর আলম, ব্যারিষ্টার আশরাফ, হেলাল চৌধুরী, মির্জা আওলাদ বেগ, আইয়ূব শেখ সোহেল, শিমুল চৌধুরী, সাহিদুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম, আব্দুল মান্নান, অলিউর রহমান শাহীন, আবুল হোসেন, শাহ রাসেল, শাহ ফয়েজ, সজীব, আলাল মহসিন, সৈয়দ শওকত, আসাবুর রহমান জীবন, আফজাল খান, সৈয়দ মারুফ প্রমুখ। সম্মানীত অতিথি ছিলেন, গ্রেটার সিলেট ডেভেলাপম্যান্ট কউন্সিল এর কেন্দ্রীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট ইছবাহ উদ্দিন ও বাংলাদেশ বিমানের অডিটর মুজিবুর রহমান।
রকমারি বাহারী খাবার দাবারে যেনো নিজ বাড়িতে ঈদের আমেজ। উল্লেখযোগ্য খাবারের মাঝে ছিলো নানা জাতের দেশীয় পিঠা, হরেক রকমের ভর্তা, ভাজি। ছিলো কোরবানীর প্রিয় রুটি, মাংস এবং ডিজার্টে মিষ্টি, জিলাবি ইত্যাদি।
পাশাপাশি চলতে থাকে স্বনামধন্য হবিগঞ্জের প্রফেশনাল/নন প্রফেশনাল শিল্পীগণের গান পরিবেষনা! বাউল শিল্পী মোস্তফা ভাই, তাহির আলী ভাই, আধুনিক বাংলাগানে রুবেল খান ভাই এবং ব্যান্ড তারকা আদিত্য সাদীর অনবদ্য পারফরমেন্স ছিলো সত্যি প্রশংসনীয়! গুনগত মান সংগীতের অন্যতম উপাদান “সুর, লয়,তাল” যার সবকিছুই ছিলো তাদের মধ্যে। সংগত কারনেই সম্মানিত অতিথিগণ শিল্পীদের প্রশংসা করেন।
শেষ মহুর্থে লন্ডন এবং লন্ডনের বাইরের বেশ কয়েকজন শুভানুধ্যায়ী ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও (ব্যাক্তিগত কাজ থাকায়) আসতে না পারায় অপারাগতা জানিয়ে ফোন করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং বলেছেন পরবর্তীতে আবারও আসার চেষ্টা করবেন। তাদেরকেও জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ।
ব্যাক্তিগত অভিমত ঃ
প্রবাসে সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড করা অনেকটাই দুরহ! প্রথমত, সময়ের সল্পতা,পারিবারিক ও ব্যাক্তিগত কাজে ব্যাস্ততা।
এরমধ্যেই যা কিছু করতে হয়। তারপরেও আছে সামাজিক সংগঠনের মাঝে আভ্যন্তরীণ নেতৃত্বের অশুভ প্রতিযোগিতা। সেই ক্ষেত্রে সকলের মন রক্ষা করে কিছু করা অনেকটাই দুঃসহ ব্যাপার, আর যদি সেটা থাকে কোন নির্দিষ্ট সংগঠনের ব্যানারে তাহলেতো কথাই নেই! সেই ক্ষেত্রে “আমরা হবিগঞ্জবাসী” কোন নির্দিষ্ট একার ব্যানার নয়। সেটা যে কেউ (হবিগঞ্জবাসী) ব্যবহার করতে পারেন নিরপেক্ষ নাম হিসাবে।
একটি অনুষ্টান করতে কতোটুকু শ্রম, মেধা, হল মেনেজমেন্ট, অর্থনৈতিক সমর্থন দিতে হয় সেটা যারা আয়োজন করে তাঁরাই বলতে পারে। বুলবুল ভাই, চৌধুরী মোস্তাক ভাই, জালাল ভাই, অলি, কামাল, জালাল আহমেদকে আবারো ধন্যবাদ দিতে চাই সব সময় পরামর্শ ও সহযোগিতা করার জন্য।
যদিও এখানে তেমন বড় কোন অনুষ্টান যেমন ৫/৭ দিনব্যাপি কিছু হয় না তারপরেও ছোট ছোট প্রোগ্রাম করতেও বেশ বেগ পেতে হয় সকলের মন রক্ষার্থে ! ব্যাক্তিগত ভাবে (৯০ দশকে) আমি ৩/৫ দিন এমনকি ৮ দিন ব্যাপি অনুষ্টান করারও অভিজ্ঞতা আছে আমার নিজের সংগঠন (বাংলাদেশ) থেকে, তথাপি আমার সেখানে তেমন কোন বেগ পেতে হয়নি। সকলেই ছিলাম সমান মনমানসিক তার। হিংসা বিদ্বেষ আমাদের কাছ থেকে সবসময়ই “কয়েক’শ গজ” দুরে থাকতো।
তাই চিন্তা করছি লন্ডনে আর কোন “ব্রেকেট বন্ধি” কোন সংগঠনের সাথে ব্যাক্তিগত ভাবে জড়াবো না ! কারো জন্য কিছু করতে চাইলে কোন সংগঠনের প্রয়োজন নাই। শুধু দরকার সমমনা কিছু সংখ্যক রুচিশীল মানুষের, আর সেটা হয়তো আমাদের আছে ! তাই কোন কিছুতে আবদ্ধ না থেকে স্বাধীনভাবে কাজ করতেই আনন্দ অনুভব করি! সেঠাই বেশী উপভোগ্য তার প্রমান ইতিমধ্যেই হয়ে গেছে। তবে যে কোন সৃজনশীল কাজে থাকার চেষ্টা করবো যদি না সেটা বিতর্কিত কিছু না হয়।
তাই সর্বশেষে সকলের প্রতি আবারো কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com