বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:১২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বাহুবলের ইসলামাবাদ অস্থায়ী পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতার উপচেপড়া ভিড়

বাহুবলের ইসলামাবাদ অস্থায়ী পশুর হাটে ক্রেতা-বিক্রেতার উপচেপড়া ভিড়

বাহুবল প্রতিনিধি ॥ শেষ দিকে এসে জমে উঠেছে বাহুবলের সদরস্থ ইসলামাবাদ অস্থায়ী কুরবানির পশুর হাটটি। হাটটিতে আশপাশের এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কুরবানির পশু এসে বাজার পরিপূর্ণ হয়ে গেছে। শুক্রবার (৯ আগস্ট) পর্যন্ত বাজারে তুলনামূলক ক্রেতা কম থাকলেও শনিবার (১০ আগস্ট) ক্রেতার সংখ্যা বেড়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
গতকাল শনিবার বাজারটিতে ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে মাঝারি সাইজের গরু। তবে এ সাইজের গরুর দাম তুলনামূলক বেশি হওয়ায় ক্রেতারা তাদের সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় করতে হিমশিম খাচ্ছেন। তাছাড়া প্রবাসী অধ্যুষিত বাহুবলে এ বছর প্রবাসী কম আসায় ব্যবসায়ীরা রয়েছেন লোকসানের শঙ্কায়। তবে শেষ দিন রবিবার বাজার ঠিকই জমে উঠবে বলে ব্যবসায়ীদের ধারণা।
বাহুবলের বিভিন্ন গ্রামসহ শেষের বিভিন্ন স্থান থেকে গরু এসেছে হাটটিতে। শনিবার দিন ঘনিয়ে রাত বাড়তেই হাটে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। তবে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের মধ্যে এক ধরনের অস্থিরতা কাজ করছে। বেশি দামে গরু ক্রয় করে, উপযুক্ত দাম না পাওয়ার শঙ্কায়ও আছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। অন্যদিকে বেকায়দায় পড়েছেন মধ্যবিত্তরা। তবে উপজেলার অন্যান্য হাটের তুলনায় এখানে বেশি গরু-ছাগল আসায় ক্রেতারা দেখেশুনে ক্রয় করতে পারছেন। রাজাপুর গ্রামের ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম জানান, তিনি ৮টি গরু নিয়ে বাজারে এসেছেন। সবকটি গরুর দাম ৮০-৯০ হাজার টাকার উপরে। এর মধ্যে দুই দিনে ৭টি গরুই বিক্রি করেছেন বলে তিনি জানান। ইসলামাবাদ আবাসিক এলাকা বাসিন্দা ব্যবসায়ি তাজ উদ্দিন বলেন, গরু ক্রয়ের জন্য তার বাজেট ছিল ৬০ হাজার টাকা। বাজেট অনুযায়ী গরু ক্রয় করতে পেরে সস্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন তিনি।
উপজেলার পূর্ব ভাদেশ্বর গ্রামের বাসিন্দা বিলাল মিয়া বলেন, হাটে পর্যাপ্ত ছাগল আসায় চাহিদা মতো ক্রয় করতে পেরেছি। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর ছাগলের দাম ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে বলে তার মন্তব্য।
বাজারের ইজারাদার ইলিয়াস আখঞ্জি বলেন, গত কয়েকদিন হাটে গরু-ছাগলের সমাগম বেশি থাকলেও ক্রেতার উপস্থিতি কম ছিল। সে হিসেবে আজ (শনিবার) হাটে বিক্রেতাদের চেয়ে ক্রেতার উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যণীয়। এ দিন দুই শতাধিক গরু-ছাগল বিক্রি হয়েছে। হঠাৎ বিক্রির হিড়িক বেড়ে যাওয়ায় শেষ দিকে এসে চাহিদা মতো গরু-ছাগল না পেয়ে অনেকেই খালি হাতে ফিরেছেন। তবে শেষ দিন রবিবার পর্যাপ্ত পরিমাণ পশুর আগমণ ঘটবে বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com