বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন আজ ॥ ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে প্রত্যাশা তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভারতীয় চা পাতা চোরাচালান রোধে চুনারুঘাটে বিশেষ আইন শৃংখলা সভা অনুষ্টিত চুনারুঘাটে অনশন করে স্ত্রীর মর্যাদা পেল রিতু শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের তফসীল ঘোষণা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিক্ষোভ নবীগঞ্জে জাতীয় পার্টি থেকে ১৫ নেতাকর্মীর গণফোরামে যোগদান হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়ে ছাত্রলীগের প্রচার মিছিল বানিয়াচংয়ে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি ॥ উপচে পড়া ভীড় শহরতলীর নোয়াগাও গ্রামে টমটম চার্জে অবৈধ বিদ্যুত সংযোগ ব্যবহার করার দায়ে আদালতে মামলা নবীগঞ্জে পৌর বিএনপির ৭নং ওয়ার্ড কমিটি গঠিত ॥ দেলোয়ার সভাপতি ও কুরুশ সম্পাদক ও আলমগীর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত
বিজিবি সাদেকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী এলাকাবাসীর

বিজিবি সাদেকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী এলাকাবাসীর

নুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ বিজিবিতে কর্মরত গ্রেফতারকৃত বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়ার সোচ্ছার হয়ে উঠেছেন চুনারুঘাটবাসী। ভাতিজাকে অপহরণ করে হত্যার অভিযোগে আটক বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়ার জামিন না মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে তার জামিনের আবেদন করলে আদালত সাদেকের জামিন না-মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। আলোচিত ওই হত্যাকাণ্ডের আসামী বিজিবি সদস্য সাদেককে আদালতে নিয়ে আসলে আদালতপাড়া লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। ভীড় সামলাতে পুলিশকে হিমসিম খেতে হয়।
এ দিকে চুনারুঘাটের বিজিবি সদস্য কর্তৃক দুলা মিয়া নামের ব্যক্তিকে ভাড়াটিয়া কিলার দিয়ে খুন করানোর পর পুরো চুনারুঘাটে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। এমন লোমহর্ষক ঘটনা এ উপজেলায় এই প্রথম। আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্য দ্বারা সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি রীতিমতো চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে উপজেলাবাসির মাঝে। হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি মিডিয়াতে প্রচারের পর থেকে উপজেলার সর্বত্র মুখ্য আলোচনা এখন এটাই। এ বিষয়ে পাট্টাশরীফ ও এর আশপাশের গ্রামবাসী এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে কেউ কোন কথা বলতে চাইছেন না। অপরিচিত কাউকে দেখলেই গ্রামবাসিরা দ্রুত স্থান ত্যাগ করছেন। পিনপতন নিরবতা পাট্টাশরীফে। তবে বয়স্ক মানুষজন বলেছেন, আইনের ধারক হয়ে সাদেক যে ঘটনার জন্ম দিয়েছে-তা এলাকার জন্য কলংকের ইতিহাস হয়ে থাকবে কেয়ামত পর্যন্ত। অনেকের মুখ থেকে ছিঃ ছিঃ শব্দও উচ্চারণ করতে দেখা গেছে। যাদের সন্তান বিভিন্ন বাহিনীতে চাকরি করছেন, তারা এই ঘটনায় লজ্জাবোধ করছেন। তারা কুলাঙ্গার বিজিবি সদস্য সাদেকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছেন। হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যাহ বলেছেন, মাত্র ৫ শতাংশ জমি নিয়ে ভাতিজা দুলা মিয়ার সাথে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়ার। এরই জের ধরে দুলা মিয়াকে খুন করার পরিকল্পনা করে বিজিবি সদস্য সাদেক। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৭ জুন শায়েস্তাগঞ্জ নতুন ব্রীজ এলাকা থেকে সাদা পোশাকদারী একদল লোক অপহরণ করে মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে যায় দুলা মিয়াকে। অপহরণ কাজে ভাড়াটিয়া কিলারদের গাইড করে সাদেকের ভাগ্নেœ আফরোজ। দুলা মিয়াকে অপহরণ করে ঢাকার হাজারীবাগ সিকদার মেডিকেলের পেছনে নিয়ে গলায় দঁড়ি পেছিয়ে হত্যার পর মরদেহ বস্তাবন্দি করে ফেলে দেয় বুড়িগঙ্গা নদীতে। ১৮ জুন মরদেহ উদ্ধার করে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামের মাধ্যমে জুরাইন কবরস্থানে অজ্ঞাত হিসেবে দাফন করে হাজারীবাগ থানা পুলিশ। সেখানে একটি হত্যা মামলাও দায়ের করা হয়। ৩০ জুন ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে বিজিবি সদস্য সাদেকের ভাগ্নে আফরোজ মিয়া (২৭) কে শ্রীমঙ্গল থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। স্থানীয় এক যুবকের মোবাইল ফোনে ধারণ করা ছবির সূত্র ধরে গত ১৪ জুলাই ঢাকা থেকে অপহরণ কাজে ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটিও জব্দ করে পুলিশ। এরপর আফরোজের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ভোলা জেলার লালমোহন থানার মৃত আজিজ মিয়ার ছেলে মাইক্রোবাস চালক ইউসুফ সরদার (৩২) এবং কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার টামনিকোনা পাড়ার লাল মিয়ার পুত্র মামুন মিয়া (৩৫) ধরা পড়ে পুলিশের হাতে। নিহত ব্যক্তির পরিচয় নিশ্চিত হলে ঢাকার জুরাইন কবরস্থান থেকে ম্যাজিস্ট্রেট এর উপস্থিতিতে দুলা মিয়ার মরদেহ উত্তোলন করা হয়। ভাড়াটিয়া কিলার ইউসুফ ও মামুন হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করার পর বিজিবি সদস্য সাদেককে ঢাকা থেকে আটক করেছে পুলিশ। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হক কুমিল¬া জেলার চৌদ্দগ্রামের শেখেন্দর আলীর ছেলে জসিম উদ্দিন (৩১) ও বরিশাল জেলার গৌরনদী এলাকার তাজেম সরদারের ছেলে শামীম সরদারকে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে হবিগঞ্জে নিয়ে আসেন। হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা সাদেক ৫১ বিজিবিতে কর্মরত। নিহত দুলা মিয়া উপজেলার সানখলা ইউনিয়নের পাট্টাশরীফ গ্রামের মৃত মকসুদ আলীর পুত্র। ঘাতক সাদেক দুলা মিয়ার চাচা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com