বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন আজ ॥ ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করা হবে প্রত্যাশা তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভারতীয় চা পাতা চোরাচালান রোধে চুনারুঘাটে বিশেষ আইন শৃংখলা সভা অনুষ্টিত চুনারুঘাটে অনশন করে স্ত্রীর মর্যাদা পেল রিতু শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের তফসীল ঘোষণা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিক্ষোভ নবীগঞ্জে জাতীয় পার্টি থেকে ১৫ নেতাকর্মীর গণফোরামে যোগদান হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়ে ছাত্রলীগের প্রচার মিছিল বানিয়াচংয়ে টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি ॥ উপচে পড়া ভীড় শহরতলীর নোয়াগাও গ্রামে টমটম চার্জে অবৈধ বিদ্যুত সংযোগ ব্যবহার করার দায়ে আদালতে মামলা নবীগঞ্জে পৌর বিএনপির ৭নং ওয়ার্ড কমিটি গঠিত ॥ দেলোয়ার সভাপতি ও কুরুশ সম্পাদক ও আলমগীর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত
জমির জন্য ভাতিজাকে খুন করালেন বিজিবি সদস্য চাচা

জমির জন্য ভাতিজাকে খুন করালেন বিজিবি সদস্য চাচা

পাবেল খান চৌধুরী ॥ চুনারুঘাটের মাত্র ৫ শতাংশ জমির জন্য ভাতিজা দুলা মিয়াকে অপহরণের পর খুন করে নদীতে মরদেহ ফেলে দেন বিজিবি সদস্য চাচা সাদেক মিয়া। পরে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে বেওয়ারিশ হিসেবে ঢাকার জুরাইন কবরস্থানে দাফন করে। কিন্তু এক কিশোরের তোলা মাইক্রোবাসের ছবির ওপর ভিত্তি করে হত্যা রহস্য উদঘাটন করল চুনারুঘাট থানা পুলিশ।
এ ঘটনায় ইতোমধ্যে ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তারা হত্যাকাণ্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন। আর অপর দুই পেশাদার খুনিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। নজরদারিতে রাখা হয়েছে বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়াকে। বুধবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা। আসামীদের দেয়া স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, চুনারুঘাট উপজেলার পাট্টাশরিফ গ্রামের দুলা মিয়া তার চাচা বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়ার বাড়ির সামনের ৫ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। জমিটির ওপর সাদেক মিয়ার লোভ ছিল। জমিটি পেতে তিনি ভাতিজার বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমাও করেন। শেষ পর্যন্ত কোনো ফল না পেয়ে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। ঢাকায় তার পরিচিত কিলারদের সঙ্গে কথা বলেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ১৭ জুন একটি মাইক্রোবাসযোগে কিলারদের চুনারুঘাটের পাট্টাশরিফ গ্রামে পাঠানো হয়। সেখানে তাদের সহযোগিতা করে সাদেক মিয়ার ভাগনে আফরাজ মিয়া।
ঘটনার সময় হত্যাকান্ডের শিকার দুলা মিয়া একটি টমটমযোগে (ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক) স্থানীয় শাকির মোহাম্মদ বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে আসামীরা তাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে অপহরণ করে নেয়। এ সময় গ্রামে মাইক্রোবাস দেখে এক কিশোর গাড়িটির ছবি তুলে। পথে দুলা মিয়া পানি পান করতে চাইলে তাতে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে খাইয়ে দেয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকার হাজারীবাগে সিকদার মেডিকেলের পেছনে নিয়ে গলায় দড়ি দিয়ে হত্যার পর মরদেহ বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীতে ফেলে দেয় তারা। পরে ১৮ জুন নদীতে মরদেহ পড়ে আছে খবর পেয়ে হাজারীবাগ থানা পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। পরিচয় না পেয়ে আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের মাধ্যমে অজ্ঞাতনামা হিসেবে জুরাইন কবরস্থানে দুলা মিয়াকে দাফন করা হয়।
এ ঘটনায় হাজারীবাগ থানায় পুলিশ একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এর আগে ১৯ জুন নিহত দুলা মিয়ার ছোট ভাই ইদু মিয়া বাদী হয়ে তিনজনকে আসামী করে চুনারুঘাট থানায় অপহরণ মামলা করেন। নিহত দুলা মিয়া ৫ মেয়ের জনক।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা আরও জানান, অপহরণ মামলাটির খবর নেয়ার পর নিহতের পরিবারের অবস্থা জেনে বিষয়টি তাকে বেশ পীড়া দিয়েছে। কোনো ক্লু না পেয়ে মানসিকভাবে বেশ অশান্তিতেও ছিলেন। তিনি তদন্তটি সম্পূর্ণ নিজে তত্ত্বাবধান করেন। অবশেষে ওই গ্রামের এক কিশোরের তোলা গাড়ির ছবির বিষয়টি জানতে পারেন। তার কাছ থেকে ছবি নিয়ে মহাসড়কে বিভিন্ন টোল প্লাজার সিসি টিভির ফোটেজ সংগ্রহ করা হয়। ভৈরব সেতুর সিসি টিভির ফুটেজে পাওয়া একটি গাড়ির সঙ্গে ছবির গাড়িটির মিল পাওয়া যায়। সে সূত্র ধরে চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজমুল হকের নেতৃত্বে ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাজমুল ইসলামসহ একদল পুলিশ মাইক্রোবাসের চালক ভোলা জেলার লালমোহন থানার টিটিয়া গ্রামের ইউসুফ সরদারকে ১৪ জুলাই ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী ঢাকার রায়ের বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয় কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার টামনিকোনাপাড়া গ্রামের মামুন মিয়াকে।
তারা উভয়েই ১৫ জুলাই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ১৬ জুলাই গ্রেফতার করা হয় ভাড়াটিয়া খুনি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের জসিম উদ্দিন ও বরিশালের গৌরনদী উপজেলার গৌরবর্ধন গ্রামের শামীম সরদারকে। এর আগে ৩০ জুন সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেফতার করা হয়েছিল অহরণের অন্যতম সহযোগী সাদেক মিয়ার ভাগনে আফরাজ মিয়াকে।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা আরও জানান, সাদেক মিয়া ৫১ বিজিবিতে কর্মরত আছেন। তাকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। যে কোনো সময় গ্রেফতার করা হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে এ ঘটনায় আরও কয়েকজনের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। সাদেক মিয়া বর্তমানে র‌্যাব-২ ঢাকায় কর্মরত আছেন বলে জানা গেছে। তবে একটি বিশ্বস্ত সুত্র জানায়, বিজিবি সদস্য সাদেক মিয়াকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজমুল হক জানান, আমি মাত্র কয়েকদিন হয় এই থানায় যোগদান করেছি। যোগদানের পর পরই পুলিশের সুপারের দিক নির্দেশনা মতে এই অপহরণ রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামি। মাত্র ৭২ ঘন্টার মধ্যেই অপহরণের পর হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হই। একই সাথে সংশ্লিষ্ট সকল অপরাধিদের গ্রেফতার করি। এর সাথে আর কেহ জড়িত আছে কি না তাও গুরুত্বসহকারে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com