বুধবার, ২৪ Jul ২০১৯, ০২:০১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে ॥ ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ প্রতিবাদে হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হবিগঞ্জ সিভিল সার্জনের মৃত্যু মির্জাপুর থেকে প্রেমিক জুটি আটক ॥ কারাগারে প্রেরণ ১০ ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত না হওয়ায় নবীগঞ্জ উপজেলা সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়নি বার্মিংহামে হবিগঞ্জ নাগরিক সমাজের সাথে মতবিনিময়কালে এমপি আবু জাহির ॥ দেশবিরোধী চক্রান্তকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান মাধবপুরে রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ১ নবীগঞ্জ ও বাহুবলে অসুস্থ রোগীদেরকে চিকিৎসা সহায়তা দিলেন এমপি মিলাদ গাজী চুনারুঘাটে নিখোঁজ প্রেমিক যুগল প্রেমিকের মা-সহ ৩ জন আটক নবীগঞ্জের দেবপাড়ায় নিহা ফ্যাশন উদ্বোধন করলেন এমপি মিলাদ গাজী বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক
বানিয়াচঙ্গে বিভিন্ন সরকারী কাজ পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ ॥ অফিসে বসে সেবা দেয়ার যুগ শেষ এখন বাড়ী বাড়ী গিয়ে সেবা দিতে হবে

বানিয়াচঙ্গে বিভিন্ন সরকারী কাজ পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ ॥ অফিসে বসে সেবা দেয়ার যুগ শেষ এখন বাড়ী বাড়ী গিয়ে সেবা দিতে হবে

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ আগের যুগের চাকুরী আর বর্তমান যুগের চাকুরীর মাঝে অনেক তফাৎ রয়েছে। আগের যুগের মানুষ সেবা নিতে অফিস আসত, আর এখন অফিসের লোকজন সেবা দিতে মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছে। এধরনের সেবার মনোভাব নিয়ে যারা মাঠে কাজ করবে তারাই নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌছতে পারবে। গতকাল সকালে বানিয়াচং উপজেলা নির্বার্হী অফিসার এর কার্যালয়ে বিভিন্ন দপ্তরের সরকারী কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময়কালে জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ একথাগুলো বলেন। বানিয়াচং হাওর অঞ্চল অধ্যূষিত একটি গ্রাম। এখানে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারলে বানিযাচং হতে পারে আরো সুন্দর ও আকর্ষনীয় একটি গ্রাম। বানিয়াচঙ্গের ঐতিহাসিক ও পর্যটনের সম্ভাবনাময় স্থানগুলো সরকারী জায়গা হলেও একটি মহল নিজেদের পকেট ভারী করতে সেই জায়গাগুলোতে অবৈধভাবে স্থাপনা তৈরী করে বসবাস করে আসছে। এদের বিরুদ্ধে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও বানিয়াচঙ্গের কোন কোন সরকারী জায়গায় অবৈধ দখলদার রয়েছে, ঐসকল জায়গায় অভিযান চালিয়ে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করতে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ প্রদান করেন। এ সময় জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ কৃষকদের কাছ থেকে ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ধান ক্রয়ের চাহিদা পূরণে আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে শতভাগ ধান ক্রয় করতে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকারকে নির্দেশনা প্রদান করেন। পাশাপাশি আগামী ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য বানিয়াচং উপজেলার ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়নের উপ-নির্বাচন যাতে সুষ্ঠু অবাধ ও নিরক্ষেপ হয় কোনো প্রার্থী বা প্রভাবশালী ব্যক্তি যাতে এই নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার না করতে পারে সেই জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসারকে মৌখিক ভাবে জানিয়ে দেন। মতবিনিময় শেষে বানিয়াচংয়ে কাবিটা কর্মসূচীর কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন ডিসি মাহমুদুল কবীর মুরাদ। দুর্যোগ সহনশীল ঘর পাচ্ছে বানিয়াচংয়ের ১১টি গৃহহীন পরিবার। কাবিটা কর্মসূচীর আওতায় গরিব অসহায় মানুষ, যাদের জায়গা আছে কিন্তু ঘর নির্মাণের সামর্থ্য নাই কেবল তাদের জন্যই উন্নতমানের ঘর তৈরি করে দিচ্ছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। কর্মসূচীর আওতায় নির্মিত বানিয়াচং ২নং ইউনিয়নের মোহরের পাড়ার মৃত তুরাব আলীর পুত্র সোহাগ মিয়াকে দেয়া প্রায় ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা ব্যয়ে ‘দুর্যোগ সহনশীল ঘর নির্মাণ’ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ দেখতে যান হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক। এ সময় জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) ও কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) কর্মসূচীর বিশেষ বরাদ্দ বাতিল করে সেই অর্থে গৃহহীন মানুষের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ঘর তৈরি করে দিচ্ছে সরকার। গরিব অসহায় মানুষ, যাদের জায়গা আছে কিন্তু ঘর নির্মাণের সামর্থ্য নাই কেবল তাদের জন্যই উন্নতমানের ঘর তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে। ডিসি মাহমুদুল কবীর মুরাদ আরো জানান, কারও হয়তো এক বা দুই শতাংশ জায়গা আছে কিন্তু ঘর নেই বা ঘর আছে কিন্তু তা ঝুঁকিপূর্ণ তাদেরকে আমরা ঘর করে দেব। এছাড়া যে পরিবারে পুরুষ সদস্য নেই বা পুুরুষ সদস্য আছে কিন্তু তার বয়স ৬৫ বছরের উপরে, নদী ভাঙ্গনে যারা ঘরবাড়ি হারিয়েছে, বেদে ও তৃতীয় লিঙ্গের সদস্যদের জন্য এ ঘর নির্মাণ করে দেয়া হবে। বানিয়াচং উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল জানান, প্রায় ৫০০ বর্গফুটের প্রতিটি ঘরে থাকবে দুটি রুম, একটি করিডোর, একটি বাথরুম ও একটি রান্নাঘর। দুর্যোগসহনীয় এসব ঘর হবে টেকসই এবং প্রতিটি ঘরেই থাকবে সোলার সিস্টেম আর বজ্রপাত নিরোধক ব্যবস্থা। প্রতিটি ঘর নির্মাণে দেয়া হচ্ছে দুই লাখ ৫৮ হাজার টাকা। কাজটি শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে পরিচালনার জন্য ৫ সদস্যের একটি কমিটিও করে দেয়া হয়েছে। এ কমিটির সভাপতি রাখা হয়েছে যাকে ঘর দেয়া হচ্ছে তাকে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার, বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ রাশেদ মোবারক, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল, জেলা সাংবাদিক ফোরাম সভাপতি শাকিল চৌধুরী, প্রেসক্লাব সেক্রেটারি তোফায়েল রেজা সোহেল, দৈনিক মানবজমিন ও চ্যানেল এস (ইউকে) উপজেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং সাংবাদিক ফোরাম সেক্রেটারি রায়হান উদ্দিন সুমন, প্রমুখ। পরে তিনি বানিয়াচং ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নের রঘু চৌধুরী পাড়ায় অবস্থিত ৩নং ভূমি পরিদর্শন করতে যান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com