সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:২৩ অপরাহ্ন

লাখাইয়ের ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন আত্মগোপনে ॥ সংবাদ সম্মেলনে গ্রেফতারের দাবী উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তার

লাখাইয়ের ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন আত্মগোপনে ॥ সংবাদ সম্মেলনে গ্রেফতারের দাবী উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হাওড় ও উপকুলিয় এলাকায় প্রান্তিক হত দরিদ্র কৃষকদের মাঝে খাদ্য ও বীজ সংরক্ষণের সাইলোড্রাম বিতরণ তালিকা থেকে চেয়ারম্যানের দেয়া কিছু নাম বাদ পড়ায় লাখাই উপজেলার উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলামের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবী জানানো হয়েছে। হামলাকারী লাখাই উপজেলার বামৈ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ এনামুল হক মামুন ও তার অভিযুক্ত সহযোগিরা আত্মগোপনে রয়েছে। এদিকে হামলার শিকার লাখাই উপজেলার মুড়াকরি ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার সাইফুল ইসলাম বর্তমানে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে সাইফুল ইসলাম লিখিত বক্তব্যে বলেন, হাওড় ও উপকুলিয় এলাকায় প্রান্তিক হত দরিদ্র কৃষকদের মাঝে খাদ্য ও বীজ সংরক্ষণের সাইলোড্রাম বিতরণের জন্য তালিকা তৈরীর সময় মুড়াকরি ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন ৫শ জনের নাম প্রদান করেন। চেয়ারম্যান, মেম্বারদের দেয়া নাম দিয়ে ১৫শ জনের নামের তালিকা প্রস্তুত করে প্ররণ করা হয়। কিন্তু তালিকায় একই ঘরের একাধিক নাম নাম থাকায় শতাধিক নাম বাদ পড়ে। এবং বাদপড়াদের পরিবর্তে নতুন নাম প্রদান করার জন্য পত্র দেয়া হয়। এদিকে তালিকা থেকে চেয়ারম্যানের দেয়া বেশ কিছু নাম বাদ পড়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তিনি এর জন্য দায়ী করেন উপ-সহকারী কৃষি অফিসার সাইফুল ইসলামকে। এদিকে গত ২৭ জুন সাইফুল ইসলাম উপজেলা অফিসে কাজ করছিলেন। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন উপজেলা কৃষি অফিসে এসে তার দেয়া কৃষকের তালিকা অনুযায়ি নাম না থাকার জন্য সাইফুল ইসলামকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। ওইদিন বিকেল ৫টার দিকে বাড়ি যাবার জন্য অফিস থেকে বের হয়ে সাইফুল ইসলাম ও তার সহকর্মী মুজিবুর রহমান উপজেলা পরিষদের মুল গেইটের অদুরে আসা মাত্র চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন তার সঙ্গীয় ৪/৫ জন অতর্কিতে হামলা চালান। তাদের এলোপাতারী আঘাতে তিনি গুরুতর আহত হন। তাদের চিৎকালে লোকজন এগিয়ে আসলে চেয়ারম্যান ও তার সঙ্গীয়রা মোটরসাইকেল যোগে পালিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় সাইফুল বাদী হয়ে লাখাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, দুই বছর পূর্বে চেয়ারম্যান এনামুল হক মামুন কৃষি পুর্নবাসনের কাজ নিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সাথেও খারাপ আচরণ করেছিলেন। তার ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায়না। এলাকার জনগণও তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ। চেয়ারম্যান এনামুল ইচ্ছামত নামের তালিকা তৈরি করে থাকেন। তালিকায় তার আত্মীয়-স্বজন ও পছন্দের লোকজন স্থান পায়। একই পরিবারের একজনের নাম তালিকায় থাকার কথা থাকলেও এনামুল তা মানতে নারাজ। এই হামলার খবর পেয়ে ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ, হবিগঞ্জ জেলা শাখাসহ সারাদেশের নেতৃবৃন্দ নিন্দা জ্ঞাপন করেছেন। একই সাথে বিষয়টি আইন অনুযায়ী সুরাহার দাবিও জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।
এসময় সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (ডিকেআইবি) সিলেট অঞ্চল শাখার সাধারণ সম্পাদক অমিত ভট্টাচার্য্য, হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোঃ তোফায়েল আহমেদ খান, সাংগঠনিক সম্পাদক অর্ধেন্দু দেব অমিত, বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা কৃষিবিদ পরিষদ হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অলক কুমার চন্দ, ডিপ্লোমা লাইভস্টক এসোসিয়েশনের সভাপতি নিয়াজ মোহাম্মদ খান, ডিকেআইবি লাখাই উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফারুক মিয়া তালুকদার, ডিকেআইবি সদর উপজেলা শাখার সাবেক সভাপতি মোঃ মাহবুবুল হক প্রমুখ।
এদিকে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত বামৈ ইউপি সদস্য ইকবাল মিয়া চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রকল্প সহ বিভিন্ন ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, চেয়ারম্যানের স্বেচ্ছারিতা, অনিয়ম, দুর্নীতির বিষদ বর্ণনা দিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের নিকট প্রায় ১ মাস পুর্বে অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কোন কার্যকর পদক্ষেপ দেখছিনা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com